Ticker

5/recent/ticker-posts

কিভাবে একটি ব্লগ পোষ্ট লিখতে হয় তা জেনে নিই

আমরা অনেকেই আছি, যারা কিভাবে পোষ্ট লিখতে হয় তা জানি না। তারপরেও আমরা শুধু মাত্র মুল অংশ টুকু লিখে পোষ্ট করি। কিন্তু আপনি কি জানের এই ভাবে পোষ্ট করলে কোন দিন রেঙ্ক করবে না। আজকে আমি আপনাদের জানবো কিভাবে একটি সাজিয়ে গুছিয়ে পোষ্ট করা যায় এবং এই পোষ্টের ভিতরে কোথায় কোথায় এসিও করলে আমাদের পোষ্ট রেঙ্ক করবে।

ব্লগ পোষ্ট লেখার নিয়ন কি, কিভাবে একটি ব্লগ পোষ্ট লেখতে হয়

সবার আগে আপনি যে বিষয় টা নিয়ে লেখা লেখি করবেন, সে বিষয় টা আগে গুগল এ সার্চ করেন সেখান থেকে কিছুটা ধারনা নেন, যে তারা কিভাবে টাইটেল লিখছে। তাদের টাইটেলের সাথে আপনার পোষ্ট এর টাইটেল মিলিয়ে আপনি ৫০ থেকে ৬০ ওয়ার্ড এর একটি টাইটেল বানান। একটি পোষ্ট এর টাইটেল ৬০ ওয়ার্ড এর বেশি দিবেন না, চেষ্টা করবেন মিনিমাম ৪০ ওয়ার্ড লেখার জন্য। এখন এমন অনেক টাইটেল আছে যেখানে ৪০ ওয়ার্ড হবে না, তখন কি করবেন, গুগল এ সার্চ করার পরে যে ফলাফল টা পেয়েছেন তার সাথে মিলিয়ে যতটুকু সম্ভব তত টুকুই লিখবেন। কোন উলটা পালটা লিখে টাইটেল বড় করবেন না।

আরেক টা কাজ করতে পারেন তা হলো, আপনি যে বিষয় টা লিখবেন বা মানুষ জানাবেন, তা মানুষ কি লিখে সার্চ করতে পারে বা আপনি কোন কিছু জানার জন্য গুগলে কি লিখে সার্চ করবেন, তা চিন্তা করেন। একটি পোষ্ট এ ক্লিক করার আগে একজন ভিজিটর দেখবে যে আপনি কি টাইটেল লিখেছেন। আমরা টাইটেল দেখার পরেই কিন্তু পোষ্ট এ ক্লিক করি।

এখন আপনারা যে বিষয়ে লিখবেন তার কিছু অংশ মিলিয়ে প্রথন ৩ থেকে ৪ টা লাইন লিখুন। অনেক ভিজিটর আছে যারা প্রথম ৩ থেকে ৪ টা লাইন পরে বুঝে যায় যে সে যেটা খুজছে সেটা আপনার পোষ্ট এ আছে কি না। এরপর একটু ফাকা দিয়ে নিচে আপনার সম্পূর্ন বিষয় টা সাজিয়ে লিখবেন। কিছু লাইন লেখার পরে ফাকা রাখবেন। যেমনঃ আমরা যেভাবে রচনা লেখি প্রথম ভূমিকা পরে বিষয় বস্তু পরে উপসংহার ঠিক সেই ভাবে ফাকা দিয়ে লিখবেন পার্ট পার্ট করে। এতে করে যা হবে ভিজিটর আপনার পোষ্টি পরতে বিরক্ত হবে না আর এই ভাবে লিখলে আপনার লেখা দেখতেও সন্দর লাগবে। আপনি ৫ থেকে ৮ টি লাইন লেখার পরে একটু ফাকা রাখবেন।

একটি পোষ্ট করার আগে মনে রাখবেন পোষ্টে যেনো মিনিমাম ৫০০ ওয়ার্ড লিখবেন, এর উপরে যত বেশি লিখতে পারেন কোন সমস্যা নেই। তবে মনে রাখবেন যতটুকু লিখবেন তা যেনো আপনার বিষয় বস্তুর বাইরে না যায় মানে অন্য কোন কিছু দিয়ে পোষ্ট বড় করবেন না। আপনার পোষ্ট টা বড় করে লিখলে একজন ভিজিটর অনেক সময় ধরে আপনার সাইটে থাকবে, এতে করে আপনার পোষ্ট গুগলে সবার আগে আসার সম্ভাবনা অনেকটাই বেরে যায়। এখন আপনি যদি আপনার বিষয় বস্তুর সাথে অন্য একটা বিষয় যোগ করে পোষ্ট বড় করে লেখেন তাহলে কিন্তু ভিজিটর প্রথম বারের পরে আর আসবে না আর আপনার পোষ্ট ও কোন দিন গুগল এর প্রথম পেজে আসবে না।

প্রথন ৩ থেকে ৪ টা লাইন লেখার পরে আপনার বিষয়ের সাথে মিল দেখে একটি ছবি দিবেন। ছবি টি যেনো সম্পূর্ন আপনার হয়। কেনোনা যার ছবি দিবেন সে দেখলে কপিরাইট ক্লেম দিতে পারে।এতে আপনার সাইটে রেঙ্ক এ আসতে বছর লেগে যেতে পারে। উপরে আমি যেই ছবি টি দিয়েছি তা দেখুন। ঠিক এমন একটি ছবি দিলেই হবে। এই ছবির মাধামে আপনার পোষ্ট রেঙ্ক করতে পারে, সেটা কিভাবে তা আমি পরের পোষ্ট এ জানাবো।

এখন আসল কাজ হলো, আপনার পোষ্ট লেখার সময় এবং লেখার পরে ভালো ভাবে পরে নিবেন, কেনোনা যদি আপনার লেখান মাঝে বানান ভুল থাকে তাহলে আপনার পোষ্ট পড়তে যেমন অসুবিধা হবে ঠিক তেমনি রেঙ্কেও আসবে না। তাই লেখার সময় ভালো ভাবে দেখে লিখবেন। বানান ভুল করা যাবে না এখন হোক সেটা বাংলা অথবা ইংলিশ।

আশা করি আপনারা সব কিছু বিঝতে পারছেন, আপনারা যদি এই নিয়ম মেনে পোষ্ট লিখেন তাহলে আপনার পোষ্ট ৬০% রেঙ্কে আসার সম্ভাবনা থাকে বাকি ৪০% এসিও করার পরে। এখন কিভাবে এসিও করবেন তা আমি পরের পোষ্টে লিখবো সেটা মিস করবেন না।

যদি কেও এসিও সম্পূর্কে ভালো জানা না থাকে তাহলে নিচের পোষ্ট টি দেখতে পারেন, এতে করে আপনার এসিও সম্পূর্কে অনেক টাই ধারনা চলে আসবে আশা করি।

এসিও সম্পূর্কে জানতে এখানে ক্লিক করুন।

তো এই ছিলো আজকের পোষ্ট। সবাই ভালো থাকবেন, সুস্থ থাকবেন।

ধন্যবাদ।


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য